জেলা বিএনপির নতুন কমিটির নামে একটি নির্লজ্জ বেহায়াচার করা করা হয়েছে। এটি দলের জন্য, দলের নেতাকর্মী ও তৃণমূলের প্রাণ কর্মী-সমর্থকদের সাথে এক ধরণের বেইমানি মোনাফেকির মাধ্যমে জেলায় দলকে মৃত সংগঠনে রূপ দেওয়ার জন্য এই ষড়যন্ত্র হয়েছে বলে মনে করেন মহেশখালী-কুতুবদিয়ায় আলমগীর ফরিদ সর্মথিত নেতাকর্মীরা। তারা জেলা বিএনপির এই কমিটিকে ‘পুরানো বেতলে নতুন মদ’ ঢেলে আসার মাতলামির সাথে তুলনা করেছেন। এনিয়ে ফেজবুকে কর্মী-সমর্থকদের নানা প্রকার প্রতিক্রিয়ামূলক স্ট্যাটাস ছড়িয়ে পড়ছে ফেজবুকে। জেলা মেরুদণ্ডহীন এই কমিটিকে ঘৃণা জানিয়ে নেতাকর্মীদের প্রতিবাদ এক্টিভিটিকে সম্মান জানিয়ে নিজস্ব স্টাইলে নতুন ধরণের ঘৃণা প্রকাশের আয়োজন করলেন বিএনপির দু’বারের নির্বাচিত সাবেক জনপ্রিয় এমপি আলহাজ্ব আলমগীর ফরিদ। তিনি জেলার এমন মেনাফেকদের কমিটিতে নিজেকে নিজের লোকজনের নাম না থাকার জন্য পটভূমিতে এক শোকরিয়া সভার আয়োজন করেছেন। তিনি এমন কমিটির প্রতি চরম ঘৃণা প্রকাশের অংশ হিসেবে নেতাকর্মীদের সম্মানে আয়োজন করছে ‘ দরবারের মিষ্টি বিতরণ’ অনুষ্ঠান। বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা আলমগীর ফরিদের নেতৃত্বে বড় মহেশখালীতে দলের কার্যালয়ে বর্তমানে এই সভা চলছে।

এপ্রসঙ্গে সাবেক জেলা ছাত্রদল নেতা কুতুবদিয়ার সন্তান মাহবুব মোর্শেদ বিন খালেদ এক ফেজবুক প্রতিক্রিয়ায় লিখেছেন -“মৌসুমে মৌসুমে জার্সি পাল্টানো বেঈমান আর মোনাফেক,অযোগ্যদের সাথে আলমগীর ফরিদ কাজ করে না। শুরু হয়েছে মহেশখালী বিএনপির কার্যালয়ে উপজেলা বিএনপি,যুবদল ছাত্রদলের মিষ্টি-বিতরণ ও জরুরি সভা।প্রধান অথিতি হিসাবে উপস্থিত আছেন সাবেক এমপি ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা গণমানুষের নেতা আলমগীর ফরিদ।”

এ লক্ষ্যে যেমনটি আনা হয়েছে অখ্যাত দরবার হোটেলের মিষ্টি তেমনটি ভাবে সংগ্রহ করা হলো  খ্যাতনামা বৈশাখীর মিষ্টিও। ( আরও বিস্তারিত আসছে। )
শেয়ার:

মন্তব্য দিন: