আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

সোনাদিয়ার কাছে জাহাজ ও জেলে ট্রলার সংঘর্ষ, মহেশখালীর ২ জেলে নিখোঁজ - মহেশখালীর সব খবর

সোনাদিয়ার কাছে জাহাজ ও জেলে ট্রলার সংঘর্ষ, মহেশখালীর ২ জেলে নিখোঁজ

 

প্রতিবেদক।। সোনাদিয়ার পশ্চিমে বঙ্গোপসাগরে ১২ বাম এর দ্বার নামক পয়েন্টে পাথরবাহি জাহাজ (ভলগেট) ও মাছধরা জেলে নৌকার সাথে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে জেলে নৌকাটি সমুদ্রে ডুবে গিয়ে এ নৌকার দুই জেলে নিখোঁজ রয়েছে। সাগরের পানিতে ডুবে আহত ও অসুস্থ অবস্থায় ৮ জেলেকে উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজ দুই জেলেই মহেশখালীর সোনাদিয়ার বাসিন্দা। সংঘর্ষে পড়া জেলে ট্রলারটি উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। নিখোঁজ জেলেদের সন্ধানে কাজ করছে নৌ-বাহিনী ও কোস্টগার্ড।


ট্রলারের মালিক -সোনাদিয়ার পূর্ব পাড়া এলাকার বাসিন্দা মো. করিম জানান -গত ১৭ নভেম্বর সকালে মাছ ধরার জন্য তার এফবি মায়ের দোয়া নামক মাছধরা ট্রলারটি ১০ মাঝি মাল্লা নিয়ে সমুদ্রে যায়। পরদিন ১৮নভেম্বর রাত ১১টার দিকে সমুদ্রের ওই পয়েন্টে জেলেট্রলারটি চলমান অবস্থায় মাতারবাড়ির কয়লাবিদ্যুৎ কেন্দ্রর উন্নয়ন কাজে বিভিন্ন সরঞ্জামাধী সরবরাহ কাজে নিয়োজিত একটি বলগেট ট্রলার টিকে স্বজোরে ধাক্কা দিলে মুহুর্তের ভেতরে ট্রলারটি ডুবে যায়। এ অবস্থায় ট্রলারে থাকা সাগরের পানিতে পড়ে যায়। সাগরে প্রায় ৩ঘন্টা ভাসার পর অপর একটি মাছধরা ট্রলার ৮ জেলেকে উদ্ধার করে। উদ্ধার হওয়া জেলেদের অনেকই সোনাদিয়ার পূর্ব পাড়ার বাসিন্দা। তবে সোনাদিয়ার সোনাদিয়ার বাসিন্দা শামসুল আলম(৩৫) ও মো. মোকারম(২০) নামের দুই জেলের সন্ধান এখনও পাওয়া যায়নি বলে জানাগেছে। এদিকে ধাক্কা দেওয়া পরপরই বলগেটটি ট্রলারের লোকজনকে উদ্ধারের কোনো উদ্যেগ না নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ট্রলার মালিকের অর্ধকোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি। উদ্ধার হওয়া জেলেদের অনেকেই আহত ও অসুস্থ হয়েছেন বলে জানাগেছে।

এদিকে বলগেটের মালিকের সঠিক কোন তথ্য পায়নি। তবে ট্রলার মালিক করিম জানান -ভলগেটটি মহেশখালীর শাপলাপুরের জেএম ঘাট বা কক্সবাজারের বিআইডব্লিউটিএ’র ঘাট থেকে ফিরছিল।

এ প্রসঙ্গ মহেশখালী থানা সূত্র জানায় -এ ঘটনায় মহেশখালী থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করা হয়েছে। ডায়েরিতে নিখোঁজ জেলেদের উদ্ধারে অনুসন্ধান চলছে বলে জানানো হয়।

মহেশখালীর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাহফুজুর রহমান জানান -ভলগেট এর ধাক্কায় ট্রলার ডুবিতে দুই জেলে নিখোঁজ এর সংবাদ পেয়ে নৌ বাহিনী ও কোস্ট গার্ডকে অবহিত করা হয়েছে, উদ্ধারের জন্য কাজ চলছে।

No comments

Powered by Blogger.