-->
বাড়ি ফেরা হলো না কুতুবদিয়ার লবণচাষির, মহেশখালীতে প্রাণ হারালো বি. বাড়িয়ার শ্রমিক

বাড়ি ফেরা হলো না কুতুবদিয়ার লবণচাষির, মহেশখালীতে প্রাণ হারালো বি. বাড়িয়ার শ্রমিক


ফুয়াদ মোহাম্মদ সবুজ।।
কুতুবদিয়া উপজেলায় ঝড়বৃষ্টির আশঙ্কা দেখে লবণ মাঠের পলিথিন তুলতে গিয়েছিলেন আব্দুর রহমান আর সেখানেই তিনি শিকার হন বজ্রেপাতের। ফলে আর বাড়ি ফেরা হয়নি তার। গত (২৩ মে) সন্ধ্যায় এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাটি ঘটলে আব্দুর রহমানকে দ্রুত স্থানীয়রা উদ্ধার করে কুতুবদিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। কর্তব্যরত চিকিৎসক রেজাউল হাছান তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত আব্দুর রহমানের বাড়ি লেমশীখালী ইউনিয়নের বশির উল্লাহ সিকদার পাড়ায়। -খবর স্থানীয় সূত্রের।

অপরদিকে একইদিন সন্ধ্যায় মহেশখালীর মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রের জেটিতে কাজ করার সময় বজ্রপাতের আঘাতে মোহাম্মদ জিলানী নামেরও এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। নিহতের বাড়ি ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলায়।

বিদ্যুৎকেন্দ্রের সংশ্লিষ্টরা জানান, ব্রাক্ষণবাড়িয়ার বাসিন্দা জিলানী মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পের পস্কো নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সিভিল ডিপার্টমেন্টে সাধারণ ওয়ার্কার হিসেবে টেকনেশিয়ানের কাজ করতেন। অন্যান্য দিনের মতো রবিবার (২৩ মে) ৪-৫ জন শ্রমিক ওভার টাইম এর কাজ করছিলেন। তারা প্রকল্পের জেটি এলাকায় কাজে ব্যস্ত ছিলেন। মাগরিবের কিছু সময় পরপরই আকষ্মিক বজ্রপাত আঘাতে জিলানী মাটিতে লুটে পড়ে। পরে অন্য শ্রমিকরা তাকে উদ্ধার করে প্রকল্প এলাকায় স্থাপিত হাসপাতালে নিয়ে যায়। এ সময় হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তবে বজ্রপাতের ঘটনায় অন্য কেউ আহত হয়নি।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. রফিকুল ইসলাম -বজ্রপাতে দু’জনের মৃত্যুর খবর জেনেছেন বলে জানান।

শিরোনাম ছিলো.. "বাড়ি ফেরা হলো না কুতুবদিয়ার লবণচাষির, মহেশখালীতে প্রাণ হারালো বি. বাড়িয়ার শ্রমিক"

Post a Comment

Iklan Atas Artikel

Iklan Tengah Artikel 1

Iklan Tengah Artikel 2

Iklan Bawah Artikel