আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

মালয়েশিয়ায় পাচারঃ মহেশখালী থেকে আটক ও উদ্ধার ১০, ট্রলার জব্দ - মহেশখালীর সব খবর

⬤ আমাদের নতুন ওয়েবসাইটে স্বাগতম। ⬤ আমাদের ওয়েবসাইট www.moheshkhalirsobkhabor.com ⬤ ফেসবুক ফেইজ www.facebook.com/m.sobkhabor ⬤ ইউটিউব চ্যানেল www.YouTube.com/Sobkhabor24x7 ⬤ ফেসবুক গ্রুপ www.facebook.com/groups/m.sobkhabor ⬤

মালয়েশিয়ায় পাচারঃ মহেশখালী থেকে আটক ও উদ্ধার ১০, ট্রলার জব্দ

বিশেষ প্রতিবেদক ।।

মালয়েশিয়া পাচারের উদ্দেশ্যে কক্সবাজারের মহেশখালী দ্বীপে জমায়েত করা হয়েছিল প্রায় অর্ধ শতাধিক রোহিঙ্গা। মহেশখালী থেকে পুলিশ ৪ দালালকে আটক করেছে, উদ্ধার করেছে দালালের জিম্মায় থাকা আরও ৬ জন মিয়ানমারের নাগরিক(রোহিঙ্গা)কে। জব্দ করা হয়েছে পাচারের জন্য জোগাড় করা একটি ট্রলার।

মহেশখালী থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর জানান-  পরিদর্শক (তদন্ত) বাবুল আজাদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বেলা আড়াইটার দিকে উপজেলার হোয়ানক ইউনিয়নের কালালিয়া কাটা পাড়াস্থ মানবপাচারকারী মোঃ ফয়েজ এরবাড়িতে রোহিঙ্গারা অবস্থান করছে বলে খবর পেয়ে অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় ওই বাড়ি থেকে বাড়ির মালিকসহ আরও ৪ দালালকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতরা হল টেকনাফের হাতিরঘোনা এলাকার মোঃ ফজল আহম্মদ(৪২), পেকুয়ার বিলহাচূড়া এলাকার মোঃ ইউনুস(৩২), মহেশখালীর হোয়ানক ইউনিয়নের ছনখোলা পাড়া এলাকার আহম্মদ উল্যাহ(৩৬), একই ইউনিয়নের কালালিয়া কাটা এলাকার নুরুল কাদের(২৮)কে গ্রেফতার করা হয় । এ সময় কক্সবাজার পৌর এলাকার মোঃ ফয়েজ(৪০) নামের এক দালাল পালিয়ে যায়। এ সময় তাদের জিম্মা থেকে ৬ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত রোহিঙ্গারা হলেন আকিয়াব জেলার মংডু এলাকার মোহাম্মদ জোবায়ের(২৭), সালেহ আহমদ(২০), আজিজুল হক (২৫), জিয়াউর রহমান(২১), আক্তার হোসেন(২০), মনজুর রহমান(২৭) তারা সকলেই বর্তমানে উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবস্থান করছিল।

এদিকে এর আগে রাতে মহেশখালী পৌর সদরের রশিদ মিয়ার ব্রীজ এলাকায় খালে নোঙ্গর করা অবস্থায় একটি ট্রলার জব্দ করে পুলিশ। এখান থেকে ট্রলারটি রোহিঙ্গাদের নিয়ে মালয়েশিয়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হওয়ার কথা ছিল বলে সূত্রে প্রকাশ। ট্রলারটি জব্দ করার পর খবর নিয়ে হোয়নকের এ মানবপাচারকারির বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে মহেশখালী থানায় মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে মামলা হয়েছে।

এদিকে মালয়েশিয়ায় পাচারের উদ্দেশ্যে মহেশখালীর বিভিন্ন এলাকায় অন্ততঃ ৫০ জন রোহিঙ্গাকে জড়ো করা হয়েছিল বলে সূত্রে প্রকাশ। এরইমধ্যে সেন্টমার্টিন এলাকায় ট্রলারডুবির ঘটনা জানাজানি হলে অনেক রোহিঙ্গা দালালদের জিম্মা থেকে ফের পালিয়ে যায়।

পুলিশের প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ
মহেশখালী থানা এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি সূত্রে জানাগেছে -মামলাটি তদন্ত করছেন মহেশখালী থানার এসআই কিশোর বড়ুয়া। তাছাড়া মহেশখালী থানার অফিসার ইন-চার্জ প্রভাষ চন্দ্র ধর এর নির্দেশে পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) মোঃ বাবুল আজাদ এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় এসআই, সৈয়দ ছানাউল্লাহ সঙ্গীয় এসআই মোঃ গোলাম মোস্তফা, এএসআই কুসুম বড়ুয়া, এএসআই তানভীর আহমেদ, এএসআই বাসুদেব দেবনাথ, এএসআই মোঃ জহিরুল হক, এএসআই হাইসিং মং মার্মা, এএসআই মোঃ আব্দুল মালেক সঙ্গীয় ফোর্সসহ এ অভিযান পরিচালনা করেন।

মালয়েশিয়ার সব খবর  রেহিঙ্গাদের সব খবর

No comments

Powered by Blogger.