আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

৬৫ দিন পর ফের সমুদ্রে মহেশখালী উপকূলীয় অঞ্চলের জেলেরা - মহেশখালীর সব খবর

৬৫ দিন পর ফের সমুদ্রে মহেশখালী উপকূলীয় অঞ্চলের জেলেরা


ফুয়াদ মোহাম্মদ সবুজ।।
গত ৬৫ দিন পর সাগরে নেমেছেন কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপকূলীয় এলাকার জেলেরা। শুক্রবার (২৩ জুলাই) দিনগত রাত থেকে কেউ আবার শনিবার (২৪ জুলাই) ভোর থেকে জাল, ফিশিং বোটসহ অন্যান্য সরঞ্জাম নিয়ে সাগরে নেমে পড়েছেন। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে জেলেরা মহেশখালী থেকে বঙ্গোপসাগরে রওনা দেন। ফলে মাছ ধরাকে কেন্দ্রে করেই বেকার জেলেরা ফের কর্মব্যস্ত হয়ে পড়ছেন।

সাগরে মাছ ইলিশ শিকার করে বিগত ২ মাসের ধার-দেনা পরিশোধের পাশাপাশি ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন বলে আশাবাদী জেলেরা। পরিবার-পরিজন নিয়েও ভালোভা
দিন কাটাবেন স্বপ্ন তাদের চোখ-মুখে। এখন সাগরের বুকজুড়ে থাকবে শুধু জেলে আর ট্রলার। এখন থেকে আবারও সরগরম হয়ে উঠবে জেলে পল্লীগুলো।

সাগরে মাছের প্রজনন ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে গত ১৯ মে মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ইলিশসহ সব প্রজাতির মাঢ় ধরায় সরকারি নিষেধাজ্ঞা ছিলো। নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার কয়েকদিন আগে থেকে এ উপকূলীয় এলাকার অনেক জায়গায় জেলেরা নৌকা ও জাল মেরামত করেছেন। শেষে মুহুর্তের অপেক্ষায় ছিলেন উপকূল অঞ্চলের এ পেশাজীবিরা। শেষ মুহুর্তের অপেক্ষার পর গভীর সাগরে ইলিশ পাওয়ার আশায় ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে দল বেঁধে বেরিয়ে পড়ছে জেলেরা। তাদের প্রত্যাশা নিষেধাজ্ঞার ফলে আগের চেয়ে ইলিশ বেশি ধরা পড়বে সাগরে।

জেলেরা বলেন, গত দুই মাস সাগরে মাছ শিকার বন্ধ ছিল। ফলে কেউ মাছ শিকারে যেতে পারিনি। ধার-দেনা করে পরিবার-পরিজন নিয়ে কস্টে দিন কাটিয়েছি। এখন নিষেধাজ্ঞা শেষ, তাই সাগরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি। আমাদের ফিশিং বোটে ১৮ জন জেলে রয়েছেন। আগামী দু’দিনের মধ্যে আমরা সাগরে যাবো। তাই মাছ শিকারে যেতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।

No comments

Powered by Blogger.