মহেশখালীর খোন্দকার পাড়ায়  মসজিদের একখন্ড  জমি দখলে  নিতে সন্ত্রাসী মহড়া- এলাকায় উত্তেজনা। যে কোন সময় রক্ত ক্ষয়ী সংঘর্ষ সৃষ্টি হতে পারে।  

উপজেলার কুতুবজোম ইউনিয়নের দক্ষিণ খোন্দকার পাড়া শাহী জামে মসজিদের ২০শতক জমি অবৈধ দখলে নিতে সন্ত্রাসী মহড়া ও মালামাল মওজুদ করার অভিযোগ উঠেছে।কুতুবজোম খোন্দকার পাড়ার শাহী জামে মসজিদের কুতুবজোম মৌজার বিএস ১৪০২ নং খতিয়ানের ৫২৪১ দাগের ২০ শতক জমি ছোট মহেশখালী দক্ষিণ নলবিলা গ্রামের মৃত দুদু মিয়ার পুত্র আরফ আলী মিয়ার নেতৃত্বে ২০/৩০ জনের একটি সন্ত্রাসী ভাড়াটিয়া বাহীনি জুমাবর দুপুরে মসজিদের নামে দানকৃত ও খতিয়ান ভূক্ত জমি দখলের চেষ্টা করে।এ সময় খোন্দকার পাড়া এলাকার ২টি সমজিদের মুসল্লীরা সংবাদ পেয়ে ভূমিদস্যু  আরফ আলী মিয়ার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের তাড়িয়ে দেয়।এ সময় উভয় পক্ষের উত্তেজনায় ৩/৪জন আংশিক আহত হয় বলে স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। মুসল্লীদের আগমনে ভূমিদস্যুদের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা পিছু হঠতে শুরু করে। উক্ত মসজিদের জমি নিয়ে ইতি পূর্বে একাধিকবার শালিস বৈঠক হলে ও ভূমিদস্যু আরফ আলী গং বার বার সু-নিদৃষ্ট কোন কাগজ দেখাতে না পারায় মসজিদের পক্ষে রায় হয়। ফলে সাবেক জামাত শিবিরের সক্রিয় সদস্য আরফ আলী মসজিদের জমি অবৈধ দখল নিতে সন্ত্রাসী কায়দায় প্রাণপণ চেষ্টা চালায়। মসজিদের জমি  যে কোন সময় রাতের আধারে অবৈধ দখল নিতে পারে এমন শংকায় রয়েছে খোন্দকার পাড়ার জনসাধারন। এদিকে মসজিদ কমিটির সাধারন সম্পাদক সালামত সিকদার বাদী হয়ে মহেশখালী থানায় একটি সাধারণ ডায়রী দায়ের করে। ডায়রীতে উল্লেখ করা হয়,ভূমিদস্যু আরফ আলীর অবৈধ হস্তক্ষেপে বাধা দেওয়ায় এলাকা ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদেরকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রারী করতে পারে।

এ ব্যাপারে, মহেশখালী থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান, মসজিদের জমি অবৈধ দখল নিয়ে নিরাপত্তা চেয়ে একটি সাধার ডায়রীর জমা দিয়েছে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আবুল কালাম জানান, মসজিদের জমি সংক্রান্ত বিষয়ে দীর্ঘদিন সমস্যা  রয়েছে আইনগত ব্যবস্থা নিতে থানাকে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে । ঊভয় পক্ষকে শান্ত থাকার অনুরোধ জানিয়েছে।



শেয়ার:

মন্তব্য দিন: