ছবিঃ প্রতীকী
মহেশখালী উপজেলার সোনাদিয়া এলাকায় সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়ে জেলের জালে আটকা পড়েছে বিপুল সংখ্যক ইয়াবা। এতে বহু ইয়াবা পানিতে গুলে গেলেও প্রায় সাড়ে চার শ পিস ইয়াবাসহ ১ জেলেকে আটক করেছে পুলিশ। ধারণা করা হচ্ছে কোনো চোরাচালানি সিন্ডিকেট সমুদ্র পথে ইয়াবা চালান করতে গিয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ধাওয়া খেয়ে এসব ইয়াবা সমুদ্রে ফেলে দেয়। কক্সবাজারে প্রথম বারের মত এরকম ভেসে আসা ইয়াবা উদ্ধার করলো পুলিশ। 

মহেশখালী থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ মহেশখালীর সব খবরকে  জানান-গত ৫ জুলাই সোনাদিয়ার পাশে সমুদ্রে জাল বসিয়ে মাছ ধরছিল তাজিয়া কাটা এলাকার জেলে মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ। এসময় তার জালে আটকা পড়ে পলিথিন দিয়ে শক্ত ভাবে মোড়ানো ইয়াবা ভর্তি একটি বড় পোটলা। প্যাকেটটি খুলে দেখেতে পায় বিপুল সংখ্যক ইয়াবা। তবে বেশীর ভাগ টেবলেট পানিতে নষ্ট হয়ে যায়। পরে ওই জেলে তা রোদে শুকিয়ে বিভিন্ন ভাবে বিক্রির চেষ্টা চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ গত কয়েক দিন ধরে বিভিন্ন কৌশলে উদ্ধারের চেষ্টা চালায়। মঙ্গলবার রাতে কুতুবজোম ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে কৌশলে এসব ইয়াবাসহ জেলেকে মহেশখালী থানায় নিয়ে আসে। তার কাছ থেকে অক্ষত ৪৪৫০ পিস ও ভিজে গুলে যাওয়া এক পোটলা ইয়াবা উদ্ধার করা করা হয়। ইয়াবাসহ মোহাম্মদ আব্দুল হামিদকে আটক করা হয়। এনিয়ে পুলিশ বাদী হয়ে মাদক দ্রব্য আইনে মামলা করে তাকে আজ বুধবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়। সূত্র জানায় বিগত সময় উখিয়া, টেকনাফসহ কক্সবাজারের বিভিন্ন উপকূলীয় এলাকায় সমুদ্রকূলে এরকম ইয়াবা ভেসে আসলেও তা উদ্ধার করা হয়নি, এমন ইয়াবা উদ্ধারে জেলায় এটি প্রথম ঘাটনা। 
ধৃত হামিদ ওই এলাকার জনৈক মৃত আব্দুল বারির পুত্র বলে জানাগেছে। তবে তার পরিবারের দাবী তিনি নির্দোষ। এসব তিনি কুড়িয়ে পেয়েছেন এবং তা থানায় নিয়ে এসেছেন। 

শেয়ার:

মন্তব্য দিন: