-->
বিদায়বেলায় ইউএনও জামিরুলের আবেগঘন স্ট্যাটাস

বিদায়বেলায় ইউএনও জামিরুলের আবেগঘন স্ট্যাটাস


অসীম দাশ ।।

দেশের একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ মহেশখালীতে প্রায় দুই বছরের কাছাকাছি সময় দায়িত্ব পালন শেষে সরকারি নির্দেশনায় নতুন কর্মস্থলে যোগদান করতে যাচ্ছেন মো: জামিরুল ইসলাম। গতকাল নবাগত ইউএনও মো. মাহফুজুর রহমানের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তরের পর তিনি যাত্রা করেছেন নতুন কর্মস্থল টাঙ্গাইলের পথে। এরই সাথে ইউএনও পদবীর ইতিও ঘটবে তার কাছে। বিসিএস প্রশাসান ক্যাডারের একজন দক্ষ কর্মকর্তা ‍হিসেবে মহেশখালীতে দক্ষতা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। করোনা মহামারীর শুরুতে লকডাউনে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনাসহ নানা উদ্যোগে তিনি বলিষ্ঠ কর্মদক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন।



দীর্ঘদিনের কর্মস্থল মহেশখালী ছেড়ে চলে যাবার দিনটি ছিলো তার জন্য ছিল বেশ আবেগপূর্ণ, মহেশখালীর মানুষের প্রতি তার ভালোবাসা, আবেগ সত্যি মানুষকে বেশ নাড়া দিয়েছে। গতকাল দুপুরে তিনি নিজের ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেন -মহেশখালী থেকে বিদায়ের শেষ প্রোগ্রামটিও হয়ে গেল। কাল থেকে খুব সকাল বেলায় কেউ ফোন করে বলবে না -ঘাটে দাড়িয়ে আছি বোট পাচ্ছি না একটু দেখেন বা রাতের বেলা কোন অসুস্থ রোগীর স্বজন ফোনে বলবেস না জরুরী কক্সবাজার হাসপাতালে যেতে হবে একটা বোট বলে দেন। কেউ আর বলবেনা কোথাও আগুন লেগেছে দ্রুত ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি পাঠান বা বাজারে দ্রব্য মূল্য বেড়ে গেছে ব্যবস্থা নেন বা কোথাও রাস্তা খারাপ বা ব্রীজ ভেংগে গেছে ইঞ্জিনিয়ার সাহেবকে বলেন। সেবাপ্রার্থীরা অফিসে না পেলে ফোনে জিজ্ঞেস করবেন না কখন আসেবেন। যাওয়া হবে না মহেশখালীর এ মাথা থেকে ও মাথা। আমার অতিথি সেই তক্ষকটি বা সকালে নাস্তার সংগী কাকটি বা আমার সামনে বেড়ে ওঠা কুকুরটিও হয়তো আর আমাকে খুজবে না। কিন্তু এই দুই বছরে মহেশখালীর সাধারন মানুষের ভালবাসা এবং সম্মান আমার আজীবন মনে থাকবে। এখানকার সাধারন মানুষ কোন কারণ ছাড়াই মানুষকে ভালবাসতে পারে। আমার স্মৃতিতে সারা জীবন এ জনপদ ও এর মানুষ রয়ে যাবে। ভাল থাকুক মহেশখালী, ভাল থাকুক এর ভাল মানষগুলো। আল্লাহ আমাদের সবার সহায় হোন।”

শিরোনাম ছিলো.. "বিদায়বেলায় ইউএনও জামিরুলের আবেগঘন স্ট্যাটাস"

Post a Comment

Iklan Atas Artikel

Iklan Tengah Artikel 1

Iklan Tengah Artikel 2

Iklan Bawah Artikel