আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

মহেশখালীতে সাংবাদিক রমজানের বাড়িতে সন্ত্রাসীদের হামলা, লুটপাট ও মেয়েদের শ্লীলতাহানি - মহেশখালীর সব খবর

⬤ আমাদের নতুন ওয়েবসাইটে স্বাগতম। ⬤ আমাদের ওয়েবসাইট www.moheshkhalirsobkhabor.com ⬤ ফেসবুক ফেইজ www.facebook.com/m.sobkhabor ⬤ ইউটিউব চ্যানেল www.YouTube.com/Sobkhabor24x7 ⬤ ফেসবুক গ্রুপ www.facebook.com/groups/m.sobkhabor ⬤

মহেশখালীতে সাংবাদিক রমজানের বাড়িতে সন্ত্রাসীদের হামলা, লুটপাট ও মেয়েদের শ্লীলতাহানি


বার্তা পরিবেশকঃ  

ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের লম্বাঘোনাস্হ আশরাফ আলী ঘোনা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মকবুল আহমেদের পুত্র আবুল হোসেন (৪৫), আবু ছৈয়দ (৩৭), আব্দু সমদ (৩২) ও আবুল কালাম এর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী অস্ত্রসস্ত্র, দা, কিরিচ, লোহার রড নিয়ে ২ নভেম্বর দুপুর ২টার সময় ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের লম্বাঘোনাস্হ সাংবাদিক রমজান আলীর বাড়িতে দফায় দফায় হামলা চালিয়ে নগদ টাকা পয়সা, স্বর্ণালঙ্কার ও মূল্যবান জিনিসপত্র লুটপাট করে নিয়ে যাওয়ার সময় (আনুমানিক মূল্য ৩ লক্ষ টাকার মত) বাড়িতে অবস্হানরত মেয়েরা বাঁধা দেওয়ার চেষ্টা করলে তাদের পরনের কাপড় টানাহেচড়া করে ছিড়ে ফেলে এবং তাদের ইজ্জত নষ্ট করে। 
সাংবাদিক রমজান আলী মহেশখালী প্রেসক্লাবের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, মহেশখালী উপজেলা জাতীয় পার্টির সদস্য, জাতীয় যুব সংহতির মহেশখালী উপজেলা সভাপতি, মহেশখালী শিল্পকলা একাডেমির সদস্য, মহেশখালী পাবলিক লাইব্রেরীর সদস্য, দৈনিক কক্সবাজার ৭১ পত্রিকার মহেশখালী প্রতিনিধি ও জাতীয় দৈনিক The Daily New Nation পত্রিকার মহেশখালী উপজেলা প্রতিনিধি। সাংবাদিক রমজানের বাড়িতে হামলাকারী সন্ত্রাসী আবুল হোসেন চায়ের দোকানের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে দিনেরাতে ইয়াবা, মদ, গাঁজা বিক্রি করে থাকে, আব্দু সমদ, আবু ছৈয়দ ও আবুল কালাম প্রশাসনের চোখ কে ফাঁকি দিয়ে নৌপথে ও স্হল পথে ইয়াবার বড় বড় চালান এনে মহেশখালী সহ বিভিন্ন জায়গায় সাপ্লাইয় করে থাকে এবং অস্ত্রের কারিগরের সাথে কন্টাকের মাধ্যমে সস্তা করে অস্ত্র কিনে দেশের বিভিন্ন জায়গার বড়বড় সন্ত্রাসী গ্রুপদের কাছ অস্ত্র বিক্রি করে থাকে। সন্ত্রাসীরা সাংবাদিক রমজানের বাড়িতে হামলার বিষয়টি পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ কে অবগত করা হলে তারা জানান, সন্ত্রাসীরা যেই হোক কাউকে ছাড় দেওয়া হবেনা শিঘ্রিই গ্রেপ্তার করা হবে। 
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ মাহফুজুর রহমান জানান, অপরাধীদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 
এ ব্যাপারে এএসপি সার্কেল মহেশখালী মোঃ জাহেদুল ইসলাম জানান, সন্ত্রাসী করে ইয়াবা, মদ ও অস্ত্রের ব্যবসা করে কেহ পার পাবেনা, তাদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে। এ ব্যাপারে মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই জানান, সন্ত্রাসীদের ঠাইঁ মহেশখালীতে হবে না, এই সন্ত্রাসীদের যেখানে পাওয়া যাই সেখান থেকে গ্রেপ্তার করা হবে। 
ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিহাদ বিন আলী জানান, ঘটনাটি খুবই ন্যাক্কার জনক, হামলাকারী ও অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া দরকার না হয় এলাকায় সন্ত্রাসী কার্যক্রম বেড়ে যাবে। অত্র ৫নং ওয়ার্ডের মেম্বার রেজাউল করিম জানান, ঘটনাটির ব্যাপারে আমি অবগত হয়েছি, এটা অত্যন্ত ন্যাক্কার জনক ঘটনা, হামলাকারীদের উপযুক্ত মত শাস্তি হওয়া দরকার। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, লম্বাঘোনাস্হ আশরাফ আলী ঘোনা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মকবুল আহমেদের পুত্র আবুল হোসেন (৪৫), আবু ছৈয়দ (৩৭), আব্দু সমদ (৩২) ও আবুল কালাম গংয়ের অত্যাচারে এলাকা বাসিঁরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। তারা ইয়াবা, মদ, গাঁজা ও অস্ত্রের ব্যবসা করে থাকে। সন্ত্রাসীদের বিরোদ্ধে মহেশখালী থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

No comments

Powered by Blogger.