-->
বড় মহেশখালীতে সক্রিয় ইয়াবাচক্র, হাত বাড়ালেই মিলছে মাদক

বড় মহেশখালীতে সক্রিয় ইয়াবাচক্র, হাত বাড়ালেই মিলছে মাদক


এম. এনামুল ||

দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীর বড় মহেশখালী ইউনিয়নে আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে ইয়াবা ও মাদক সিন্ডিগেট। হাত বাড়ালেই মিলছে ইয়াবা সহ সব ধরনের মাদক দ্রব্য।

বড় মহেশখালী নতুনবাজার মাঠে সন্ধ্যা নামার পর পরই অপ্রকাশ্যে শুরু হয় যেন মাদকের হাট। একাধিক সূত্রে জানা যায়, বড় মহেশখালীর বিভিন্ন পয়েন্টে বেশ কয়েকটি মাদকের স্পট রয়েছে। ওইসব পয়েন্ট দিয়ে মাদকের ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করে আসছে কিছু প্রভাবশালী ও মাদক ব্যবসায়ীদের একাধিক সেন্টিগেট।

ভুক্তভোগী সচেতন মহলের অভিযোগ বড় মহেশখালী ইউনিয়ন পরিষদের আশে-পাশে, বউ বাজার, মাঠের চতুর পার্শ্বে বিক্রি হয় ইয়াবা সহ বেশ কিছু মাদকদ্রব্য। কলেজের শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী, চায়ের দোকানের কর্মচারী পর্যন্ত এই ইয়াবা সেবনে জড়িত। এসব মাদক ব্যবসার সাথে প্রভাবশালীরা জড়িত থাকায় তারা কিছু করতে পারছেন না।

অনুসন্ধানে জানা যায়, অধিকাংশ মাদকাসক্ত ব্যক্তি পরিবারকে বাধ্য করে নিজ বসতঘরেই সেবন করে মাদক৷ আবার অনেকেই স্কুল,কলেজ,সরকারী পরিত্যক্ত দালানে ইয়াবা সেবনের নিরাপদ স্থান হিসেবে বেঁচে নিয়েছে।

মহেশখালী থানার সাবেক ওসি দিদারুল ফেরদৌস মহেশখালী থানায় নিযুক্ত হওয়ার পর পরই মহেশখালীতে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করেছিলেন। সে সময় সক্রিয় মাদক ব্যবসায়ীরা বেশ কিছু দিন গা ঢাকা দিলেও এখন আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে।

গোপন সূত্রে জানা যায়, সমুদ্র পথে বেশ কিছু পয়েন্টে কৌশলে প্রতিদিনই ঢুকছে ইয়াবার চালান। যারা মাদক ব্যবসায় জড়িত তারা আবার শুঁটকি, পান, কাঁকড়াসহ বেশ কিছু পণ্যবাহী জিনিসের ব্যবসায় জড়িত বলে জানা যায়। তারা মহেশখালী থেকে চট্টগ্রাম, ঢাকা সহ বেশ কিছু জায়গায় শুঁটকি পান কাঁকড়া বহনের আড়ালে ইয়াবা পাচার করে আসছে।

এবিষয়ে বড় মহেশখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এনায়েত উল্লাহ বাবুল বলেন, মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক সব সময় অভিযান অব্যহত রয়েছে। মাদকের ভয়ঙ্কর নেশা বর্তমান তরুণ সমাজকে গ্রাস করতে চলেছে৷ সাথে নিজেদেরকেও সচেতন থাকতে হবে। মাদক বিক্রির খবর পেলে যে কোন সময় নিজে গিয়ে তা প্রতিহত করার জন্য সে প্রস্তত বলে জানান।

এবিষয়ে মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই এর কাছে জানতে চাইলে মোবাইল ফোনে সংযোগ পাওয়া যায়নি।

এই দিকে মাদকের বিরুদ্ধে বেশ কিছু সামাজিক সংগঠন আন্দোলন করলেও থামছেনা মাদক ব্যাবসীরা। সচেতন মহলের অভিযোগ মাদক ব্যবসায়ীরা বর্তমান রাজনৈতিক দলের ছত্রচ্ছায়ায় মাদক ব্যবসা করে আসছে। দলীয় পদ-পদবী থাকার কারণে তাদের মাদক ব্যবসা সহজ হয়ে উঠেছে।  মাদকের বিরুদ্ধে মহেশখালী প্রশাসনের অভিযান চান সাধারণ মানুষ।

শিরোনাম ছিলো.. "বড় মহেশখালীতে সক্রিয় ইয়াবাচক্র, হাত বাড়ালেই মিলছে মাদক"

Post a Comment

Iklan Atas Artikel

Iklan Tengah Artikel 1

Iklan Tengah Artikel 2

Iklan Bawah Artikel