ছোট মহেশখালীতে জেলেদের উপর হামলা, মাছ ধরার সরঞ্জাম লুট, ক্ষয়ক্ষতি

বার্তা পরিবেশক।। মহেশখালী উপজেলার ছোট মহেশখালীতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সাধারণ জেলেদের উপর হামলা চালিয়েছে প্রতিপক্ষের লোকজন। এ সময় মাছ ধরার কাজে ব্যবহৃত বেশ কিছু জাল ও সরঞ্জাম লুট করে নেয়, ভাংচুর ও জাল কেটে ফেলা হয়। প্রশাসনের কাছে এ ঘটনার দ্রুত প্রতিকার দাবি করেছেন ক্ষতিগ্রস্তরা। এ নিয়ে থানায় লিখিত এজাহার দেওয়া হয়েছে।

এজাহার সূত্রে জানাগেছে -উপজেলার ছোট মহেশখালীর আহমদিয়া কাটা এলাকার বাসিন্দা হোছন আহমদ (৬০) দীর্ঘ ৪০-৪২ বছর ধরে ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের জেটির পূর্ব পাশে কুহেলিয়া নদীতে তাদের ফাঁড় বসানোর স্থানে জাল বসিয়ে মাছ আহরণ করে আসছিল। এরই মধ্যে একই এলাকার জয়নাল আবেদীন গ্রুপ এর লোকজন জাল বসানোর ওই স্থানটি দখলে নেওয়ার মানসে দীর্ঘদিন থেকে এ সব জেলেদের মাছ ধরার কাজে নানা ব্যাঘাত সৃষ্টিসহ বিভিন্ন প্রকার হয়রানী করে আসছিল। এ নিয়ে স্থানীয় ভাবে তারা বিচার প্রার্থী হলেও প্রতিপক্ষের লোকজন তাদের হয়রানী অব্যাহত রাখে। গতকাল সকালে তারা এ জাল বসানোর স্থানে হামলা চালিয়ে জাল, মাছ ধরার সরঞ্জাম লুট করে নিয়ে যায়। নষ্ট করে ফেলে বহু টাকার জাল ও সরঞ্জাম। এজাহারে উল্লেখ করা হয় -হোছন আহমদ এর লোকজন ওই এলাকায় ১০টি বিহিন্দী জাল বসিয়ে মাছ আহরণের অপেক্ষা করছিল। এ সময় সকাল ৭টার দিকে জয়নাল আবেদীন, বশির আহমদ, মোহাম্মদ আলম, সোলতান আহমদ, কালু মিয়া, জাফর আহমদ, মনির আহমদ, সাকাওয়াত হোসেন, সাহাব উদ্দিন, নুর হোসেন, জাহাঙ্গীর, রবিউল আলম, শেখ আহমদ ও মহিম উদ্দিনসহ আরও ৪-৫ জন অজ্ঞাত লোক দা ও বিভিন্ন অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাদের বসানো জালের উপর হামলা চালায়। এ সময় জাল ও মাছ ধরার বহু সরঞ্জাম কটে নদীতে ভাসিয়ে দেয়। যার অর্থমূল্য আড়াই লাখ টাকা হবে বলে জানান। এ সময় বাধা দিতে হোছন আহমদকেও বেশ মারধর করে। পরে তারা দস্যু স্টাইলে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ টাকা মূল্যের জাল ও সরঞ্জাম লুট করে ওই স্থান থেকে চলে যায়। 

এদিকে এ ঘটনার পর সামগ্রীক ভাবে বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন জেলে হোছন আহমদ এর পরিবার। তারা এ নিয়ে দ্রুত প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ ঘটনায় গতকালই হোছন আহমদ বাদি হয়ে থানায় লিখিত এজাহার দায়ের করেছে বলে জানাগেছে।  

মন্তব্য

আগের পোস্ট পরের পোস্ট