আমিনুল হক


অসম্ভব প্রতিভার অধিকারী মহেশখালীর ক্ষুদে কন্ঠশিল্পী সুমন। তার পুরো নাম আরাফাত উদ্দিন সুমন। ইতোমধ্যে মহেশখালীর বিভিন্ন স্থানের বিভিন্ন মঞ্চে গান পরিবেশন করে যথেষ্ট সুনাম অর্জন করেছে সে। সে প্রাইমারী স্কুলের ছাত্র থাকাকালীন সময় থেকে গানের জগতে পা বাড়ায়। তারই চাচা এনামুল করিম তাকে গানের প্রতি উৎসাহ যুগিয়েছেন। সুমন বর্তমানে মহেশখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির নিয়মিত ছাত্র। তার বর্তমান স্কুলের শিক্ষকদের অনুপ্রেরণা ও স্নেহধন্যে ক্ষুদে এ কন্ঠশিল্পী সম্প্রতি ‘ডিজিটাল আইল্যান্ড মহেশখালী’র উদ্বোধন উপলক্ষ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইয়েদ আহমেদ পলকের আগমন উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করে উপস্থিত শ্রোতাদের মনে স্থান করে নেয়। গরীব ঘরে জন্ম নেওয়া সুমন সুযোগ-সুবিধা পেলে আরো অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারবে বলে জানান তার শিক্ষকরা। সুমন মহেশখালী ‘উদীচী’র একজন কর্মী ও নিয়মিত ক্ষুদে শিল্পী। উদীচী’র যে কোন অনুষ্ঠানে সুমনের পরিবেশনায় গান অত্যন্ত হৃদয় জুড়ানো। সরকারি যে কোন অনুষ্ঠানে সুমনের উপস্থিতি এবং পরিবেশিত গান প্রশংসা কুড়িয়ে আসছে। সুমন মহেশখালী উপজেলার বড় মহেশখালী ইউনিয়নের পশ্চিম সিপাহির পাড়া গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষ আবু তাহের ড্রাইভারের সন্তান। তার পিতার পক্ষে এ অনন্য প্রতিভার অধিকারী ক্ষুদে কন্ঠশিল্পী সুমনকে একটি হারমোনিয়াম কিনে দেওয়ার মতে সামর্থ্য নেই। গানের প্রতি নিজের আগ্রহ ও নিজের ইচ্ছের জোরে সুমনের আজকের এই অবস্থান। সুমন পড়ালেখার পাশাপাশি বিদ্যালয়ের স্কাউটস এর সাথেও জড়িত। স্কাউটস দলের সাথে চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমডেকায় অনুষ্ঠিত তাবু জলসা ও গানের প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে কৃতিত্ব দেখিয়েছে। মহেশখালী উদীচী’র প্রধান উপদেষ্টা ও গোরকঘাটা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দিলীপ কুমার দাশ ও উপজেলা উদীচী সংসদের সভাপতি প্রশান্ত মঙ্গল জানান, মহেশখালীর গানের ভূবনে নতুন আবির্ভাব এ ক্ষুদে কন্ঠশিল্পী সুমন যে কোন মাধ্যম হতে সাহায্য-সহযোগিতা পেলে ভবিষ্যতে অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারবে। সুমন জানায়, পড়ালেখার পাশাপাশি আমি গান চর্চা করে যেতে চাই। এ ব্যাপারে সকলের আন্তরিক সহযোগিতা ও দোয়া কামনা করছি।

শেয়ার:

মন্তব্য দিন: