কালারমার ছড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ
নেতা তারেক বিন ওসমান শরীফসহ ৫১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে মহেশখালী থানা
পুলিশ। সরকারি কাজে বাধাদান ও অস্ত্র আইনে শনিবার রাতে এই মামলাটি রেকর্ড
করা হয়। অপরদিকে কালারমার ছড়ায় প্রতিপক্ষের গুলিতে এক যুবক গুরুতর আহত
হয়েছে।

মহেশখালী থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান -শুক্রবার বিকেলে কালারমার
ছড়া বাজার থেকে পুলিশ একজন আসামিকে গ্রেফতার করে। এসময় পুলিশের কাছ থেকে
আসামি ছিনিয়ে নিতে পুলিশের উপর বেপরোয়া হামলা চালায় স্থানীয় চেয়ারম্যান
তারেকের নেতৃত্বে তার লোকজন। ছিনতাই করে নিয়ে যায় গুলি ভর্তি একটি
ম্যাগাজিন। এতে পুলিশের এক এসআইসহ চার পুলিশ সদস্য আহত হয়। এই ঘটনায়
কালারমার ছড়া পুলিশ ক্যাম্পের ইন-চার্জ রাজু আহমদ গাজী বাদী হয়ে
চেয়ারম্যান তারেককে প্রধান আসামি করে ৫১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।
স্থানীয় চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ জানান -তাদের বিরুদ্ধে আনা
পুলিশের অভিযোগটি সত্য নয়, ক্যাম্পের আইসি রাজু বিনা উস্কানিতে নিরীহ
লোকজনের উপর গুলি চালায়। এতে বেশ কয়েকজন লোক গুলিবিদ্ধ হয়।

এদিকে শনিবার বিকেলে কালারমার ছড়ার নোনাছড়ি ব্রিজ এলাকায় প্রতিপক্ষের
গুলিতে মোহাম্মদ রুবেল নামের এক যুবক গুরুতর আহত হয়। রুবেল ওই এলাকার
মোহাম্মদ বাবুলের পুত্র। এদিকে পুলিশের খোয়া যাওয়া গুলি ভর্তি ম্যাগজিন
উদ্ধারে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চলছে বলে ওসি জানান। কালারমার ছড়া থেকে
শনিবার চার জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে সূত্র জানায়।

মহেশখালী থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান -মহেশখালীর আইনশৃঙ্খলা রক্ষার স্বার্থে পুলিশ সর্বান্তক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন সন্ত্রাসী যেই হোকনাকেনো কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। তিনি মহেশখালীর আইনশৃঙ্খলা উন্নয়নের জন্য সবার সহযোগিতা কামনা করেন। 
শেয়ার:

মন্তব্য দিন: