আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

বাঁকখালী নদী দখল: মহেশখালীর খালেক চেয়ারম্যান সহ ২০ জনকে দুদকের নোটিশ - মহেশখালীর সব খবর

⬤ আমাদের নতুন ওয়েবসাইটে স্বাগতম। ⬤ আমাদের ওয়েবসাইট www.moheshkhalirsobkhabor.com ⬤ ফেসবুক ফেইজ www.facebook.com/m.sobkhabor ⬤ ইউটিউব চ্যানেল www.YouTube.com/Sobkhabor24x7 ⬤ ফেসবুক গ্রুপ www.facebook.com/groups/m.sobkhabor ⬤

বাঁকখালী নদী দখল: মহেশখালীর খালেক চেয়ারম্যান সহ ২০ জনকে দুদকের নোটিশ


সবখবর রিপোর্ট।।

কক্সবাজারের বাঁকখালী নদী দখলের অভিযোগে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও সাবেক এক জামায়াতে ইসলামী নেতাসহ ২০ জনকে নোটিশ দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।

বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত ও প্রাপ্ত তথ্যমতে জানা যায়, গত ৭ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মুজিবর রহমান, কক্সবাজার পৌর বিএনপির সভাপতি রফিকুল হুদা চৌধুরী, সাবেক জামায়াত নেতা জাহাঙ্গীর কাশেম, মহেশখালীর খালেক চেয়ারম্যান, ছালেহ আহমদ ও ফরিদুল আলমসহ ২০ জনকে নোটিশ দেয়া হয়েছে। 
দুদক চট্টগ্রাম সমন্বিত জেলা কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ‘দখল দূষণে বাঁকখালী নদীর অবস্থা দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। প্রাথমিকভাবে ২০ জনকে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে দখলে যুক্ত সবাইকে ডাকা হবে। তদন্ত শেষে দখলদারদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে বলে জানা যায় ৷

উল্ল্যেখ যে, গত বছরের ৫ই নভেম্বর শাপলাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুদল খালেক কর্তৃক কস্তুরাঘাট সংলগ্ন এলাকায় দখল করা বিপুল পরিমান সরকারি জমি উদ্ধার করতে তৎকালিন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নোমান হোসেন ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি মোঃ নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে প্রশাসনের একটি টিম উচ্ছেদ অভিযানে পরিচালনা করেন ৷ এসময় তৎকালিন ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহাবুবুর রহমান সহ পৌরসভার একটি দল উপস্থিত ছিলেন ৷বিভিন্ন কাগজ পর্যালোচনা ও আইনগত জটিলতা থাকায় নদী এবং নালা দখল করে কাজ না করতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে উচ্ছেদ অভিযান স্থগিত করে ৷
গতবছরের ১২ ডিসেম্বর শাপলাপুর ইউনিয়নের নির্বাচন সম্পন্ন হয় ৷ নির্বাচনী প্রতীক বরাদ্দের আগে নদী দখলদারী হওয়ায় আব্দুল খালেক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উক্ত ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নূরুল হক প্রার্থীতা বাতিল চেয়ে উচ্চ আদালতে রীট দায়ের করেন ৷ ২৭ নভেম্বর নূরুল হকের দায়ের করা রীটের শুনানী শেষে উচ্চ আদালতের এনেক্স কোট ২১ এর বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খন্দকার দিলুরুজ্জামানের গঠিত বেঞ্চ আবদুল খালেককে নির্বাচনের জন্য অযোগ্য ঘোষণা করে রায় দেন। 
উচ্চ আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে খালেক চেয়ারম্যান চেম্বার জজ আদালতে একটি আপীল করেন ৷ ২৮ নভেম্বর আপিল শুনানি শেষে প্রার্থিতা অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেওয়া রায় স্থগিত করে চেম্বার জজ আদালতের বিচারক হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী রায় দেন এবং নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে শাপলাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ৷

No comments

Powered by Blogger.