আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

আদালতের আদেশ অমান্য করে মহেশখালীতে প্রভাবশালী কর্তৃক সংখ্যালঘুদের জমি দখল, হুমকি - মহেশখালীর সব খবর

আদালতের আদেশ অমান্য করে মহেশখালীতে প্রভাবশালী কর্তৃক সংখ্যালঘুদের জমি দখল, হুমকি

বার্তা পরিবেশক।। মহেশখালীতে আদালতের আদেশ অমান্য করে এলাকার প্রভাবশালীরা সংখ্যালঘু হিন্দুদের এক খণ্ড জমি জোর পূর্বক দখলে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আদালতের আদেশ ও নির্দেশনার অনুবলে মহেশখালী থানা পুলিশ সংশ্লিষ্টদের বিরোধপূর্ণ জায়গায় কোনও প্রকার কার্যক্রম চালাতে নিষেধ করলেও সংশ্লিষ্টরা এ নিষেধ শোনেনি বলে অভিযোগে প্রকাশ। 

সূত্রের লিখিত অভিযোগ থেকে জানা গেছে -মহেশখালী পৌরসভার পুটিবিলা মৌজায় মৃত দীপক কুমার পাল এর পুত্র অনিন্দ্য কুমার পাল ও সন্দীপন পাল এর ১০ শতক জমি অবৈধ দখলের জন্য পায়তারা করে আসছিল একই এলাকার মোহাম্মদ আবু জাফর ও তার লোকজন। এ অবস্থায় তারা জমিটি দখলের অপ-তৎপরতা চালালে বিষয়টি নিয়ে আইনশৃঙ্খলা অবনতির আশংকায় অনিন্দ্য কুমার পাল ও সন্দীপন পাল এর পক্ষ থেকে মহেশখালী থানায় লিখিত অভিযোগ জানান। মহেশখালী থানা অভিযোগটি গ্রহণ করে পরবর্তী উদ্যোগ নেন। দুই পক্ষের বক্তব্য শোনে পুলিশ পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানালেও এরই মধ্যে আবু জাফর ও তার লোকজন সংখ্যালঘুদের এ ভূমি দখলের জন্য তৎপরতা চালায়। এরই মধ্যে পুলিশ তাদের কার্যক্রমের সুবিধার্থে আদালত থেকে নিষেধাজ্ঞা আনার পরামর্শ দিলে অনিন্দ্য কুমার পাল ও সন্দীপন পাল কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এর আদালতে একটি মামলা উত্থাপন করেন। এমআর মামলা নং ১৭৪৯/২০২১। মামলায় মোহাম্মদ আবু জাফর, মোঃ মোজাম্মেল হক ও শামছুল আলমকে বিবাদী করা হয়। আদালত সার্বিক বিষয় শোনে বিরোধপূর্ণ এ জমিতে দুই পক্ষকে সব ধরণের কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য গত ৬ সেপ্টেম্বর একটি আদেশ দেন। কিন্তু আদালতের এমন আদেশের পর দ্রুত অনেকটা ত্রাস সৃষ্টি করে বিপুল সংখ্যক লোকজন নিয়ে মহড়া চালিয়ে বিরোধপূর্ণ জমিটি দখলে নেয়। এরই মধ্যে মহেশখালী থানা থেকে আদালতে মামলা ও আদেশের অনুবলে বিবাদীদেরকে শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষার্থে সতর্কীকরণ নোটিশও দেন। কিন্তু বিবাদীরা আদালতের আদেশের তোয়াক্কা না করে ওই জমিটি দখলে নিয়ে টিনের বেড়া দিয়ে দেয়। 

অনিন্দ্য কুমার পাল ও সন্দীপন পাল এর পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয় - বিবাদীরা ওই জমি দখলে নিতে আসলে পরিবারের লোকজন তাদের বাধা দিতে চায়। এ সময় বিবাদীদের ২০-২৫ জন লোক বিভিন্ন অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ছিল, তারা পরিবারের লোকজনকে নানা ভাবে হুমকি দেয়। বর্তমানে বিবাদীরা সংখ্যালঘু পরিবারের এ সব সদস্যদের ধারাবাহিক ভাবে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন এ সব পরিবার। 

No comments

Powered by Blogger.