আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

১২ মাইল পথ হেঁটে গিয়ে টিকা নিতে হলো ধলঘাটার শিক্ষার্থীদের, দুর্ঘটনা (ভিডিও) - মহেশখালীর সব খবর

১২ মাইল পথ হেঁটে গিয়ে টিকা নিতে হলো ধলঘাটার শিক্ষার্থীদের, দুর্ঘটনা (ভিডিও)


আব্দুর রহমান রিটনমাতারবাড়ি আরাফাত আশিকধলঘাটা 𒊹
 নিজ ইউনিয়নে সুবিধা না থাকায় পাশের ইউনিয়নের ১২ মাইল পথ পাড়ি দিয়ে করোনা ভেকসিন নিলেন ধলঘটার  ৫শত  ছাত্র-ছাত্রীকে। এতে শিক্ষার্থীদের পথে দুর্ঘটনার কবলে পড়তে হয়েছে, হয়েছে অসুস্থও। নিচের ভিডিও দেখুনঃ

ধলঘাটার শিক্ষার্থীদের টিকা নিতে হলো দীর্ঘ পথ হেঁটে মাতারবাড়ি গিয়ে। গাড়িতে গিয়ে পড়তে হলো দুর্ঘটনায়

Posted by moheshkhalirsobkhabor.com on Sunday, January 9, 2022
জানা গেছে, মহেশখালীতে ১২-১৮ বছরের শিক্ষার্থীদের ফাইজারের টিকা দেওয়া হচ্ছে।  ফাইজারের টিকা দিতে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষেই টিকা দিতে হয়। কিন্তু ধলঘাট ইউনিয়নে এ সুবিধা না থাকায় পাশের ইউনিয়ন মাতারবাড়িতে প্রায় ১২ মাইল পথ হেঁটেই করোনা ভেকসিন দিতে হয়েছে।

রোবরার (৯ জানুয়ারি) সকাল থেকে মাতারবাড়ির সিএনজি স্টেশনের রশিদ মার্কেটে তাদের টিকা কার্যক্রম শুরু হয়। এতে ধলঘাটা  ইউনিয়নের একটি উচ্চ বিদ্যালয়, একটি দাখিল ও একটি আলিম মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা টিকা নেয়।

মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্রে জানা গেছে, ধলঘাটা ইউনিয়নে ধলঘাটা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩৪৭ জন শিক্ষার্থী, ধলঘাটা বদরুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার ১৪০ জন শিক্ষার্থী এবং মহুরীঘোনা মোহাম্মদিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার ২৪৭ জন শিক্ষার্থী, মোট ৭৩৪ জন শিক্ষর্থীকে টিকার আওতায় এনে প্রায় সাড়ে ৫'শ শিক্ষার্থীকে টিকা দেয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহের মধ্যে বাকি ২'শ শিক্ষার্থীকে টিকা প্রদান করা হতে পারে।

ধলঘাটার একাধিক শিক্ষক ও স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, ধলঘাটা থেকে মাতারবাড়িতে টিকা নিতে আসা খুবই কষ্টকর। ছোট ছোট শিক্ষার্থীদের প্রায় ১২ মাইল পায়ে হেঁটে যাতায়াত করতে হয়েছে। অনেক শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েছে, যেতে দুর্ঘটনার কবলেও পড়তে হয়েছে। ধলঘাটার দুরত্ব ও যাতায়াতের সীমাবদ্ধতা বিবেচনা করে এখানে টিকা কেন্দ্র স্থাপন জরুরি ছিল।

অভিভাবকদের দাবি, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আন্তরিক হলে ধলঘাটার পাশে প্রকল্পের এসি রুমে টিকা কেন্দ্র স্থাপন করা যেত। কেননা, প্রকল্পের শ্রমিকদের সেখানে টিকা দেয়া হয়েছে। আর শিক্ষার্থীদের দেয়া হয়েছে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে। এটি চরম বৈষম্যের বহিঃপ্রকাশ বলে দাবি করেন তারা। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ সমালোচনও হচ্ছে।

এবিষয়ে ধলঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল হাসান জানান, ফাইজারের টিকা এসি গাড়ি করে বহন করতে হয় কিন্তু ধলঘাটের এসি গাড়ি বহনের সুবিধা না থাকায় পাশের ইউনিয়নে টিকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকতা ডা. মাহফুজুল হক বলেন- "টিকা গুলো এসি গাড়িতে পরিবহন করে এসি রুম সংরক্ষণে রাখতে হয়। এসি গাড়ি ও রুমের অভাবে ধলঘাটায় কেন্দ্র করা যায়নি।"

No comments

Powered by Blogger.