মহেশখালীতে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় বক্তারা

মহেশখালী উপজেলা ভূমি অফিস একটি গুরুত্বপূর্ণ সরকারি দপ্তর। মহেশখালীর বেলায় নানা কারণে এই ভূমি অফিসের আলাদা গুরুত্ব রয়েছে। দীর্ঘ দিন থেকে এই ভূমি অফিসের বেশ দুর্নাম থাকলেও সম্প্রতি অন্যত্র বদলী হওয়া সহকারি কমিশনার (ভূমি) ভূমি অফিসকে প্রায় দালাল ও হয়রাণীমুক্ত করতে সক্ষম হয়েছিল। বর্তমানে এই কার্যালয়ে নতুন কর্মকর্তা যোগদান করেছেন। তিনিও যেন ভূমি অফিসকে দালাল ও হয়রাণিমুক্ত রাখেন। গতকাল মহেশখালী উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় বক্তারা এই দাবী তুলে ধরেন। 

ভারপ্রাপ্ত মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মারুফ হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান হোছাইন ইব্রাহিম, বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার পাশা চৌধুরী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন, মহেশখালী থানার ওসি তদন্ত ওসি সফিকুল আলম চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি এম আজিজুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য ডাঃ নুরুল আমিন, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সুরাইয়া আমিন, কুতুবজোম ইউপি চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন খোকন, বড় মহেশখালীর এনায়েত উল্লাহ বাবুল, ধলঘাটার চেয়ারম্যান কামরুল হাসান, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আমজাদ হোসেন, সাবেক কমান্ডার সালেহ আহমদসহ উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দরা। 

এসময় বক্তাদের বক্তব্যে উঠে আসে -চরম দুর্নীতির মাধ্যমে বিগত সময় ভূমি অফিসের ঝাড়ুদার থেকে অকেই বড় লোক হয়েছে। বর্তমান নতুন কর্মকর্তা যেন গেলবারের মত এসব সংস্কার করেন। 

একই ভাবে মহেশখালী জেটি অংশে খাল কাটা হলেও কাটের জেটির বিকল্প সৃষ্টি না করার কঠোর সমালোচনা করা হয়। দ্রুত এর সংস্কার না হলে প্রয়োজনে জেটিতে গিয়ে নাগরিক স্বার্থে প্রতিবাদ করবে জানান মহেশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্ব আনোয়ার পাশা চৌধুরী। একই ভাবে অদক্ষ ড্রাইভার দিয়ে স্পীডবোট চালানোর কারণে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা হচ্ছে বলে বক্তব্যে উঠে আসে। 

সভায় জনপ্রতিনিধিরা আইনশৃঙ্খলার স্বার্থে থানার নিয়মিত কার্যক্রমে তাদেরকে সম্পৃক্ত করার আহ্বান জানান।
শেয়ার:

মন্তব্য দিন: