আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

১০ মাসের বেতন মওকুফ করেছে ইউনুছখালী নাছির উদ্দীন উচ্চ বিদ্যালয় - মহেশখালীর সব খবর

⬤ আমাদের নতুন ওয়েবসাইটে স্বাগতম। ⬤ আমাদের ওয়েবসাইট www.moheshkhalirsobkhabor.com ⬤ ফেসবুক ফেইজ www.facebook.com/m.sobkhabor ⬤ ইউটিউব চ্যানেল www.YouTube.com/Sobkhabor24x7 ⬤ ফেসবুক গ্রুপ www.facebook.com/groups/m.sobkhabor ⬤

১০ মাসের বেতন মওকুফ করেছে ইউনুছখালী নাছির উদ্দীন উচ্চ বিদ্যালয়


কাব্য সৌরভ ||

মহামারী করোনার ভাইরাসের কারণে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ মতে গত ১৭ মার্চ-২০২০ থেকে বন্ধ রয়েছে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্টান। কয়েক দফায় বন্ধ বাড়িয়ে সর্বশেষ আগামী ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সে মোতাবেক মহেশখালীর কালারমারছড়া ইউনিয়নের ইউনুছখালী নাছির উদ্দীন উচ্চ বিদ্যালয়ও এখনো বন্ধই রয়েছে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও করোনার প্রাদুর্ভাব কাটতে না কাটতেই মহেশখালীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের মাসিক ফি পরিশোধ করার নির্দেশ দিয়েছে অনেক প্রতিষ্ঠান। এতে সন্তানদের মাসিক ফি পরিশোধ করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে অভিভাবকদের। 

ইতিমধ্যে অনেক প্রতিষ্ঠান শিক্ষার্থীদের তিন মাসের ফি মওকুফ করার ঘোষণা দিয়েছে। এদিকে ইউনুছখালী নাছির উদ্দীন উচ্চ বিদ্যালয় মার্চ-২০২০ থেকে ডিসেম্বর-২০২০ পর্যন্ত সব শিক্ষার্থীদের মাসিক ফি মওকুফ করার ঘোষণা দিয়েছে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম কুদ্দুস চৌধুরী।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল কাদের সিদ্দিকী জানান, ইউনুছখালী নাছির উদ্দীন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংখ্যা প্রায় ৮'শ জন। চলতি বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের মাসিক ফি মওকুফ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি।

দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী মুহাম্মদ মুহসীন তাঁর বিদ্যালয়ের এমন সিদ্ধান্তে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে।

এবিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম কুদ্দুস চৌধুরী বলেন, করোনার কারণে অভিভাবকদের আর্থিক সংকট বিবেচনায় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যদের নিয়ে আলোচনা করে সকলের কাছে শিক্ষার্থীদের মাসিক ফি মওকুফ করার বিষয়টি উপস্থাপন করা হয়। এতে সকলে একমত হলে মার্চ থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মাসিক ফি মওকুফের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তিনি আরো বলেন, মহেশখালী একটি প্রান্তিক জনপদ এখানে অভিভাবকদের তেমন আয় রোজগার নেই। যাদের আয় রোজগার ভালো তারা আবার এখানে সন্তানদের পড়ান না, শহরের বিভিন্ন স্কুলে নিয়ে যান। তাই শিক্ষার্থীদের মাসিক ফি মওকুফের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যেসব সচ্ছল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে সে-সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও অভিভাবকদের অর্থ সংকট বিবেচনায় এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত বলে মনে করেন তিনি।

No comments

Powered by Blogger.