আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

জেলা সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসেনের নির্দেশে মহেশখালীতে ছাত্রলীগের ধান কাটা কর্মসূচি চলছে - মহেশখালীর সব খবর

জেলা সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসেনের নির্দেশে মহেশখালীতে ছাত্রলীগের ধান কাটা কর্মসূচি চলছে


ইশরাত মুহাম্মদ শাহ জাহান।।
কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইনের নির্দেশে মহেশখালী উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা ইনজামামুল হক জুসিয়ানের নেতৃত্বে কৃষকের পাকা ধান কেটে ঘরে তুলে দেওয়ার কর্মসূচি চলমান রয়েছে।


মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা অনুযায়ী কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইনের দিকনির্দেশনায় এ কর্মসূচি চলমান রয়েছে।

২৮ এপ্রিল (বুধবার) উপজেলার শাপলাপুরের জনতা বাজার গভীর পাহাড়ে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও দুইজন অসহায় কৃষকের জমিনের পাকা ধান সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কেটে দেন তাঁরা। কাটার পর কৃষকের বাড়িতে ধান পৌঁছে দেয়ার কাজটি ও করেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

ছাত্রলীগের জনসম্পৃক্ত এমন কর্মকান্ড  ইতোমধ্যে প্রশংসা কুড়িয়েছে সর্বমহলে।

সূত্রে জানা যায়, গ্রামের পরিবারগুলোর অধিকাংশই কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। করোনাকালে আয় না থাকায় তারা খুব কষ্টে পড়ে যায়। পাকা ধান জমিতে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। শ্রমিকের মজুরির অভাবের কারণে পাকা ধান ঘরে তুলতে পারছেন না।  কৃষকের দূর্দশার কথা খবর পেয়ে মহেশখালী উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা ইনজামামুল হক জুসিয়ান কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইনের নির্দেশে একদল ছাত্রলীগ কর্মী দুইজন কৃষকের পাকা ধান কেটে তা কৃষকের ঘরে তুলে দেন।

কৃষকরা বলেন, অর্থের অভাবে পাকা ধান কাটতে পারছিলাম না। জমিতে নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা ছিল। আজকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা যেভাবে ধান কাটতে সাহায্য করেছেন তা কখনো ভূলার মতো নয়।

এসময় উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা ইনজামামুল হক জুসিয়ান'র নেতৃত্বে বিভিন্ন ইউনিয়নের ছাত্রলীগের অসংখ্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা ইনজামামুল হক জুসিয়ান উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইনের নির্দেশনায় মহেশখালী উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরদের নিয়ে দরিদ্র কৃষকের পাকা ধান ঘরে তুলে দেওয়ার কার্যক্রম চলছে এবং এই কার্যক্রম ভবিষ্যতেও চলমান থাকবে।

এ সময় তিনি করোনা ভাইরাসের এই ক্রান্তিলগ্নে মহেশখালীর বিভিন্ন অঞ্চলের দরিদ্রকৃষক, যারা পাকা ধান ঘরে তুলতে শ্রমিকদের মজুরি নিয়ে চিন্তিত, তাদেরকে মহেশখালী উপজেলা ছাত্রলীগসহ স্থানীয় ইউনিয়ন নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ করার আহব্বান জানান।

উক্ত কার্যক্রমের পাশাপাশি অসহায় ও হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রাণ ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ চলমান রাখবেন বলেও জানান তিনি।

এছাড়া মহেশখালীর প্রত্যন্ত অঞ্চলের দরিদ্র কৃষক ও হতদরিদ্রদের পাশে থাকতে মহেশখালী ছাত্রলীগের নেতা কর্মীদের প্রতি আহব্বান জানান।

ধান কাটার কার্যক্রমে অংশ নিতে মহেশখালী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে ছুটে আসেন ছাত্রলীগের অসংখ্য নেতা কর্মীরা।

উল্লেখ্য, গত ২৩ এপ্রিল (শুক্রবার) বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মুন্সির ডেইল গ্রামের বাসিন্দা অসহায় কৃষক সোনা মিয়ার তিন কানি জমিনের পাকা ধান কেটে ঘরে তুলে দিয়েছিলেন উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা ইনজামামুল হক জুসিয়ানের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

ছাত্রলীগ নেতা ইনজামামুল হক জুসিয়ান ইতিমধ্যে সমাজের অসহায় হতদরিদ্র ছিন্নমূল পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ, গরিব ও মেধাবী ছাত্র /ছাত্রীদের শিক্ষা উপকরণ বিতরণ, রক্ত দান কর্মসূচি, অসহায় কৃষকের পাকা ধান কেটে ঘরে তুলে দেওয়া, দুর্যোগ মোকাবেলায় অসহায়দের সাহায্য, বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস রক্ষায় জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম, মাস্ক, স্যানিটাইজার, সাবান সহ সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান সহ বেশ কিছু জনসেবা ও জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম করে সাধারণ জণগণের প্রশংসায় ভাসছেন।

তার এ ধান কাটা, ইফতার সামগ্রী বিতরণ সহ বিভিন্ন কর্মসূচি চলমান রয়েছে এবং থাকবে বলেও জানা যায়।

No comments

Powered by Blogger.