আমরা মহেশখালীর কথা বলি..

মহেশখালীতে এবার ভয়ঙ্কর এসিড সন্ত্রাস? ঘটনাস্থলঃ মাতারবাড়ি - মহেশখালীর সব খবর

মহেশখালীতে এবার ভয়ঙ্কর এসিড সন্ত্রাস? ঘটনাস্থলঃ মাতারবাড়ি

চোরের দল কর্তৃক দুই ভাই এসিড সন্ত্রাসের শিকার?
রকিয়ত উল্লাহ ও আব্দুর রহমান রিটন।। মহেশখালীর মাতারবাড়িতে চুরি করা থ্রি-হুইলার সিএনজির পার্টস ফেরত চাওয়ার ইস্যুকে কেন্দ্র করে এ সব পাটর্সের মালিক ও তার এক ভাইকে চোরের দল কর্তৃক এসিড জাতীয় তরল নিক্ষেপ করা হয়েছে বলে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। ২৯ ডিসেম্বর (বুধবার) রাত সাড়ে ৮ টার দিকে মাতারবাড়ির মিয়াজীর পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মাতারবাড়ি পুলিশ ক্যাম্পের সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
 
[ স্থানীয় চিকিৎসক, পুলিশ ও আহতের পরিবারের পক্ষ থেকে এটি এসিড নিক্ষেপের ঘটনা বলে জানানো হলেও এটি ঠিক নিশ্চিত এসিড নিক্ষেপের ঘটনা কি না তা আমরা অধিক গ্রহণযোগ্য কোনো চিকিৎসা সূত্র থেকে নিশ্চিত হতে পারিনাই। ফলে সে প্রশ্নবোধকতার জায়গা থেকে আমরা নিউজে দায়িত্ব নিয়ে বলতে পারছি না -এটি আসলেই 'এসিড সন্ত্রাস' কি না।]

জানা গেছে -হামলার শিকার দুই ভাই হলেন মিয়াজিপাড়ার নাগু মিয়ার সন্তান নয়ন(১৮) ও হামিদ(২৮)।  তাদের মুখ ও মাথা ঝলসে গেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় চিকিৎসক। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি বেসরকারি চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যায়। পরে তাদেরকে চকরিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

মর্ডান হাসপাতাল নামের স্থানীয় ওই চিকিৎসা কেন্দ্রের কর্তব্যরত চিকিৎসক আবু রায়হান জানান, তাদের ঝলসে যাওয়া আঘাতের চিহ্ন দেখে প্রাথমিক ভাবে এসিড নিক্ষেপ বলে ধারণা করছি। তাদেরকে সরকারি হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হয়েছে।

সূত্রে জানা যায়, কয়কদিন আগে নয়নের মালিকানাধিন সিএনজি গাড়ির কিছু পার্টস চুরি হয়ে যায়। এর পর থেকে চুরি যাওয়া মালামাল ও চোরের সন্ধান করতে থাকেন গাড়ির মালিক। এরইমধ্যে গাড়ি মালিক জানতে পারেন যে -স্থানীয় মিয়াজীর পাড়ার বদর উদ্দিনের পুত্র কপিল নামে এক ব্যক্তি এ সব মালামাল চুরি করে। গত কয়েকদিন আগে এ মালামাল ফেরত চাইতে গেলে গাড়ি মালিক ও কথিত ওই চোরের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। এরইমধ্যে এ বিরোধের জের ধরে আজ রাত ৮টার দিকে কপিলের নেতৃত্বে ২-৩জন লোক তাদেরকে ক্ষতিকর তরল নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায় বলে জানা যায়। দুই পক্ষই একই গ্রামের বাসিন্দা।

আহতের পিতা নাগু মিয়া জানান, "আমার ছেলের সিএনজি গাড়ির মালামাল কপিল চুরি করে। চুরি করা মাল ফেরত চাওয়ায় কপিলের নেতৃত্বে কয়েকজন সংঘবদ্ধ চোর আমার সন্তানদের উপর এসিড নিক্ষেপ করে। এতে আমার দুই ছেলে গুরুতর আহত হয়। আমি তাদের শাস্তি দাবি করছি এবং প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।"

'এসিড নিক্ষেপ' এর ঘটনা উল্লেখ করে মাতারবাড়ি পুলিশ ক্যাম্পের আইসি উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাখাওয়াত হোসেন জানান, এসিড নিক্ষেপে দুই ভাই আহত হওয়ার খবর শোনে তিনিসহ পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ নিয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

মহেশখালী থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি)মো. আব্দুল হাই জানিয়েছেন -প্রাথমিক ভাবে মাতারবাড়িতে এসিড নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে বলে জানতে পেরেছি। ডাক্তারি রিপোর্ট পাওয়ার পর নিশ্চিত ভাবে বলা যাবে।

No comments

Powered by Blogger.