শামসুল ইসলাম, মালয়েশিয়া থেকে ফিরে : 🔴

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য রফতানি করে বছরে কমপক্ষে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করা সম্ভব। বাংলাদেশি গার্মেন্টস পণ্য ধীরে ধীরে মালয়েশিয়ার বস্ত্রবাজার দখল করে নিচ্ছে। মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর হাংতুয়া লরং মেহের বাউ অব জালান কেনাঙ্গাস্থ বৃহৎ বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস মার্কেটের পণ্য মালয়েশিয়াসহ পার্শ্ববর্তী দেশসমূহে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করছে। হাংতুয়া লরং কেনাঙ্গাস্থ বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস মার্কেটে প্রতিদিন উপচেপড়া ভিড় পরিলক্ষিত হচ্ছে। প্রতিদিন সূর্য্য উদয়ের সাথে সাথেই মালয়েশিয়ার দূর-দূরান্ত থেকে বাস, প্রাইভেট কার, কভার ভ্যান , এলআরটি ও মেট্রোরেল যোগে ক্রেতারা হাংতুয়া লরং মেহের বাউ অব জালান কেনাঙ্গাস্থ ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশি পণ্যের মার্কেটে ছুঁটে আসছে। ক্রেতারা বিভিন্ন শোরুমে ঘুরে ঘুরে তাদের পছন্দের রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য সস্তায় কিনে প্যাকিং করে নিজ নিজ অঞ্চলের মার্কেটের দোকানে নিয়ে যাচ্ছেন। সম্প্রতি সরেজমিন গিয়ে এ দৃশ্য দেখা গেছে। বাংলাদেশি গার্মেন্টস পণ্যের চাহিদা দিন দিন বেড়ে যাওয়ায় প্রবাসী ব্যবসায়ীদের অনেকেই একাধিক শোরুম ও গুদাম ভাড়া নিয়ে দেদার ব্যবসা করছেন। এসব প্রবাসী ব্যবসায়ীরা রেমিটেন্সের গতি বৃদ্ধিতেও উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছেন। তবে অতিসম্প্রতি মালয়েশিয়ার রিংগিটের দাম কিছুটা কমে যাওয়ায় প্রবাসী ব্যবসায়ীদের মাঝে কিছুটা হতাশা দেখা দিয়েছে। তার পরও প্রবাসী গার্মেন্টস ব্যবসায়ীরা মুনাফা অর্জনে সাফল্যের স্বাক্ষর রাখছেন। কেনাঙ্গাস্থ বাংলাদেশি মার্কেটের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সিম টেক্স এসডিএন বিএইচডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক  মার্শাল পাভেল এ তথ্য জানিয়েছেন।
প্রবাসী ব্যবসায়ী মার্শাল পাভেল বলেন, মালয়েশিয়ায় প্রবাসী ব্যবসায়ীরা অত্যন্ত কঠোর পরিশ্রম করে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্যের বাজার দখল করতে সক্ষম হচ্ছে। হাংতুয়া লরং মেরানটিস্থ মার্কেটের মুন মার্কেটিং এসডিএন বিএইচডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাজী মোহাম্মদ মতিউর রহমান ইনকিলাবকে বলেন, মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্যের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। হাংতুয়ার বাংলাদেশি মার্কেটের রকমারি পণ্যের গুণগত মান তুলনামূলক ভালো হওয়ায় মালয় ও চাইনিজ ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন। তিনি বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশি শোরুমের মালিক ও সেলসম্যানরা মালয় ভাষায় পারদর্শী হওয়ায় ক্রেতাদের সহজেই আকৃষ্ট করা সম্ভব হচ্ছে। মালয় ক্রেতারা বাংলাদেশি রেডিমেট পণ্য কিনে পূর্ব মালয়েশিয়া সারওয়ার্ক, মালয়েশিয়ার বিভিন্ন শহর এবং সিঙ্গাপুর ও  ইন্দোনেশিয়ায় পাঠাচ্ছেন। এক প্রশ্নের জবাবে প্রবাসী ব্যবসায়ী মতিউর রহমান বলেন, বাংলাদেশি প্রবাসী ব্যবসায়ীদের ঐক্যবদ্ধ করতে পারলে প্রতিবছর রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য বিক্রি করে প্রায় ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করা সম্ভব। এ জন্য প্রবাসী ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষায় গত ১৬ ডিসেম্বর কুয়ালালামপুর হাংতুয়া ৪২/এ, লরং মেহের বাউ অব জালান কেনাঙ্গাস্থ কার্যালয়ে এক সভায় মুন মার্কেটিং এসডিএন বিএইচডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাজী মোহাম্মদ মতিউর রহমানকে আহ্বায়ক ও সিম টেক্স এসডিএন বিএইচডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মার্শাল পাভেলকে যুগ্ম-আহ্বায়ক করে ২১ সদস্যবিশিষ্ট বাংলাদেশ গার্মেন্টস বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন মালয়েশিয়ার আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এজেএসিই ফ্যাশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাজী মো: জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে এ আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। প্রবাসী ব্যবসায়ীদের অধিকার নিশ্চিতকরণ এবং মালয়েশিয়ার বস্ত্রবাজারে সুনাম অর্জনের গুরুত্বারোপ করে এতে আরো বক্তব্য রাখেন প্রবাসী ব্যবসায়ী  মার্শাল পাভেল, মোস্তাফিজুর রহমান, আব্দুল বারী, নাহিদ, নাজমূল, আব্দুল বাতেন ও আব্দুল মালেক। বাংলাদেশের শিল্পাঞ্চল নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলার রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য প্রতিনিয়ত আন্তর্জাতিক শিপের কন্টেইনার ভরে মালয়েশিয়ায় সরবরাহ করা হচ্ছে। কোটি কোটি টাকার রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য প্যাকিং করে মালয়েশিয়ায় পাঠাতে বিপুল সংখ্যাক  শ্রমজীবি নারী-পুরুষ রাত-দিন কাজ করছেন। মালয়েশিয়ার হাংতুয়ার লরং কেনাঙ্গাস্থ বাংলাদেশি সাড়ে তিন শ’ রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্যের শোরুমে কর্মরত বাংলাদেশি ও মালয় নারী-পুরুষ কর্মীরা পাইকারী ও খুচরা বিক্রেতাদের মন জয় করে রকমারি পণ্য বিক্রি করে প্রচুর রাজস্ব আয় করছেন। বিগত কয়েক বছরে গড়ে উঠা বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্যের শোরুমসমূহের কর্মরত বাংলাদেশি কর্মীরা ইতোমধ্যেই মালয় ভাষা আয়ত্ব করে ক্রয় বিক্রয়ে বিরাট ভূমিকা রাখছে। নারায়ণগঞ্জের আলিরটেকস্থ প্রবাসী ব্যবসায়ী ও লরং কেনাঙ্গাস্থ মার্কেটের সরকার ফ্যাশন এসডিএন বিএইচডির স্বত্বাধিকারী রফিক উল্লাহ সরকার এ তথ্য জানান। 
প্রসঙ্গত: ব্যবসায়ী মার্শাল পাভেল বড় মহেশখালীর ফকিরাঘোনা এলাকার একটি শিক্ষিত পরিবারের সন্তান। তিনি বর্তমানে মালয়েশিয়ায় থেকে বৈশ্বিক পরিমণ্ডলে ব্যবসায়ীক কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছেন। তিনি সকলের দোয়া কামনা করছেন। 

সূত্র: দৈনিক ইনকিলাব।
২১ সদস্যবিশিষ্ট গার্মেন্টস বিজনেস আহ্বায়ক কমিটি গঠিত
শামসুল ইসলাম, মালয়েশিয়া থেকে ফিরে : মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য রফতানি করে বছরে কমপক্ষে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করা সম্ভব। বাংলাদেশি গার্মেন্টস পণ্য ধীরে ধীরে মালয়েশিয়ার বস্ত্রবাজার দখল করে নিচ্ছে। মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর হাংতুয়া লরং মেহের বাউ অব জালান কেনাঙ্গাস্থ বৃহৎ বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস মার্কেটের পণ্য মালয়েশিয়াসহ পার্শ্ববর্তী দেশসমূহে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করছে। হাংতুয়া লরং কেনাঙ্গাস্থ বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস মার্কেটে প্রতিদিন উপচেপড়া ভিড় পরিলক্ষিত হচ্ছে। প্রতিদিন সূর্য্য উদয়ের সাথে সাথেই মালয়েশিয়ার দূর-দূরান্ত থেকে বাস, প্রাইভেট কার, কভার ভ্যান , এলআরটি ও মেট্রোরেল যোগে ক্রেতারা হাংতুয়া লরং মেহের বাউ অব জালান কেনাঙ্গাস্থ ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশি পণ্যের মার্কেটে ছুঁটে আসছে। ক্রেতারা বিভিন্ন শোরুমে ঘুরে ঘুরে তাদের পছন্দের রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য সস্তায় কিনে প্যাকিং করে নিজ নিজ অঞ্চলের মার্কেটের দোকানে নিয়ে যাচ্ছেন। সম্প্রতি সরেজমিন গিয়ে এ দৃশ্য দেখা গেছে। বাংলাদেশি গার্মেন্টস পণ্যের চাহিদা দিন দিন বেড়ে যাওয়ায় প্রবাসী ব্যবসায়ীদের অনেকেই একাধিক শোরুম ও গুদাম ভাড়া নিয়ে দেদার ব্যবসা করছেন। এসব প্রবাসী ব্যবসায়ীরা রেমিটেন্সের গতি বৃদ্ধিতেও উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছেন। তবে অতিসম্প্রতি মালয়েশিয়ার রিংগিটের দাম কিছুটা কমে যাওয়ায় প্রবাসী ব্যবসায়ীদের মাঝে কিছুটা হতাশা দেখা দিয়েছে। তার পরও প্রবাসী গার্মেন্টস ব্যবসায়ীরা মুনাফা অর্জনে সাফল্যের স্বাক্ষর রাখছেন। কেনাঙ্গাস্থ বাংলাদেশি মার্কেটের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সিম টেক্স এসডিএন বিএইচডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক  মার্শাল পাভেল এ তথ্য জানিয়েছেন।
প্রবাসী ব্যবসায়ী মার্শাল পাভেল বলেন, মালয়েশিয়ায় প্রবাসী ব্যবসায়ীরা অত্যন্ত কঠোর পরিশ্রম করে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্যের বাজার দখল করতে সক্ষম হচ্ছে। হাংতুয়া লরং মেরানটিস্থ মার্কেটের মুন মার্কেটিং এসডিএন বিএইচডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাজী মোহাম্মদ মতিউর রহমান ইনকিলাবকে বলেন, মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্যের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। হাংতুয়ার বাংলাদেশি মার্কেটের রকমারি পণ্যের গুণগত মান তুলনামূলক ভালো হওয়ায় মালয় ও চাইনিজ ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন। তিনি বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশি শোরুমের মালিক ও সেলসম্যানরা মালয় ভাষায় পারদর্শী হওয়ায় ক্রেতাদের সহজেই আকৃষ্ট করা সম্ভব হচ্ছে। মালয় ক্রেতারা বাংলাদেশি রেডিমেট পণ্য কিনে পূর্ব মালয়েশিয়া সারওয়ার্ক, মালয়েশিয়ার বিভিন্ন শহর এবং সিঙ্গাপুর ও  ইন্দোনেশিয়ায় পাঠাচ্ছেন। এক প্রশ্নের জবাবে প্রবাসী ব্যবসায়ী মতিউর রহমান বলেন, বাংলাদেশি প্রবাসী ব্যবসায়ীদের ঐক্যবদ্ধ করতে পারলে প্রতিবছর রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য বিক্রি করে প্রায় ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করা সম্ভব। এ জন্য প্রবাসী ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষায় গত ১৬ ডিসেম্বর কুয়ালালামপুর হাংতুয়া ৪২/এ, লরং মেহের বাউ অব জালান কেনাঙ্গাস্থ কার্যালয়ে এক সভায় মুন মার্কেটিং এসডিএন বিএইচডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাজী মোহাম্মদ মতিউর রহমানকে আহ্বায়ক ও সিম টেক্স এসডিএন বিএইচডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মার্শাল পাভেলকে যুগ্ম-আহ্বায়ক করে ২১ সদস্যবিশিষ্ট বাংলাদেশ গার্মেন্টস বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন মালয়েশিয়ার আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এজেএসিই ফ্যাশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাজী মো: জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে এ আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। প্রবাসী ব্যবসায়ীদের অধিকার নিশ্চিতকরণ এবং মালয়েশিয়ার বস্ত্রবাজারে সুনাম অর্জনের গুরুত্বারোপ করে এতে আরো বক্তব্য রাখেন প্রবাসী ব্যবসায়ী  মার্শাল পাভেল, মোস্তাফিজুর রহমান, আব্দুল বারী, নাহিদ, নাজমূল, আব্দুল বাতেন ও আব্দুল মালেক। বাংলাদেশের শিল্পাঞ্চল নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলার রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য প্রতিনিয়ত আন্তর্জাতিক শিপের কন্টেইনার ভরে মালয়েশিয়ায় সরবরাহ করা হচ্ছে। কোটি কোটি টাকার রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্য প্যাকিং করে মালয়েশিয়ায় পাঠাতে বিপুল সংখ্যাক  শ্রমজীবি নারী-পুরুষ রাত-দিন কাজ করছেন। মালয়েশিয়ার হাংতুয়ার লরং কেনাঙ্গাস্থ বাংলাদেশি সাড়ে তিন শ’ রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্যের শোরুমে কর্মরত বাংলাদেশি ও মালয় নারী-পুরুষ কর্মীরা পাইকারী ও খুচরা বিক্রেতাদের মন জয় করে রকমারি পণ্য বিক্রি করে প্রচুর রাজস্ব আয় করছেন। বিগত কয়েক বছরে গড়ে উঠা বাংলাদেশি রেডিমেট গার্মেন্টস পণ্যের শোরুমসমূহের কর্মরত বাংলাদেশি কর্মীরা ইতোমধ্যেই মালয় ভাষা আয়ত্ব করে ক্রয় বিক্রয়ে বিরাট ভূমিকা রাখছে। নারায়ণগঞ্জের আলিরটেকস্থ প্রবাসী ব্যবসায়ী ও লরং কেনাঙ্গাস্থ মার্কেটের সরকার ফ্যাশন এসডিএন বিএইচডির স্বত্বাধিকারী রফিক উল্লাহ সরকার এ তথ্য জানান। - See more at: https://www.dailyinqilab.com/article/54369/%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%B6%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%AA%E0%A6%A3%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%B0%E0%A6%AB%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%BF-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%9B%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A7%AB%E0%A7%A6-%E0%A6%AE%E0%A6%BF%E0%A6%B2%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%A8-%E0%A6%A1%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%86%E0%A7%9F-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%BE-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A7%8D%E0%A6%AD%E0%A6%AC#sthash.SzbLNza3.dpuf
শেয়ার:

মন্তব্য দিন: