উপজেলার হোয়ানক পদ্মপুকুর পাড় এলাকায় গতকাল দিন দুপুরে তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় দু’জন গুরুতর আহত হয়েছে। এই ঘটনায় নারীসহ সাধারণ ভাবে আহত হয়েছে আরও একাধিক জন। রাশেদ নামের আহত ১ জনের অবস্থা সংকটাপন্ন। আহতদের মহেশখালী ও কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এনিয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানাগেছে। 

সূত্রের অভিযোগ থেকে জানাযায়, সম্প্রতি অতিবৃষ্টির সময় সৃষ্ট পানির ঢলে স্থানীয় পদ্মপুকুর পাড় এলাকায় ইট বিছানো একটি পারিবারিক সড়ক সম্পূর্ণ বিলীন হয়ে যায়। পরে এলাকার সাংসদ আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিক ক্ষতিগ্রস্ত সড়কটি পরিদর্শন করেন। তিনি সরকারি বরাদ্দ দিয়ে সড়কটি সংস্কারেরও আশ্বাস দেন। এদিকে সরকারি ভাবে সংস্কার কাজ শুরু হতে দেরি হওয়ায় স্থানীয় লোকজন নিজেদের উদ্যোগে শ্রমিক লাগিয়ে ও স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে গতকাল রাস্তাটি সংস্কারের উদ্যোগ গ্রহণ করে। সকাল থেকে মাটির কাজ চলছিল। অভিযোগে জানাযায়-পানির ঢলে রাস্তায় বিছানো ইট পার্শ্ববর্তী লোকজনের বাড়ি ভিটেয় ঢুকে পড়ে এবং তাদের অনেকেই এসব ইট নিজেদের কাজে ব্যবহার করতে শুরু করে। গতকাল সড়কের উন্নয়ন কাজ চলার সময় পাশের বাড়ি ভিটেয় ঢুকে পড়া সড়কের কাজের জন্য সংগ্রহ করতে নিয়ে আসতে চাইলেই জনৈক জসীম, তারেক ও আমান উল্লাহসহ কয়েকজন তাতে বাঁধা দেয়। এক পর্যায়ে বেলা ১২ টার দিকে স্থানীয় জনসাধারণের চলাচলের রাস্তার ইট এভাবে নিয়ে যাওয়ার ঘটনার প্রতিবাদ করায় ওই এলাকার বাদশা মিয়ার পুত্র জসীম উদ্দিনের নেতৃত্বে সংস্কার কাজে উদ্যোগ নেওয়া লোকজনের উপর এলোপাথাড়ি হামলা চালায়। এসময় তাদের দা, ছুরিসহ বিভিন্ন ধারালো অস্ত্রের আঘাতে স্থানীয় মো. সৈয়দ কবিরের পুত্র রিদোয়ান কাদের প্রকাশ রাশেদ(২২) ও মৃত. মাওলানা সাহেব মিয়ার পুত্র নুরুল কবির(২৮) গুরুতর আহত হয়। ঘটনার পরপরই আহতদের উদ্ধার করে মহেশখালী হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। রাশেদের অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তার অবস্থা সংকটজনক বলে পারিবারিক সূত্র দাবী করছে। ঘটনার পর এলাকায় বেশ উত্তেজনা বিরাজ করছে। এনিয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও আহতদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।   
শেয়ার:

মন্তব্য দিন: