-->
অভিভাবক শূন্য কালারমার ছড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ

অভিভাবক শূন্য কালারমার ছড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ


রকিয়ত উল্লাহ।।

মহেশখালী উপজেলা কালারমার ছড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ অভিভাবক বিহীন হয়ে পড়েছে প্রায় দীর্ঘ ২ বছর। এদিকে মেয়াদ উত্তীর্ণ হলেও নতুন কোন কমিটির খবর নেই। জানযায় ২০১৮ সালের অসুস্থ জনিত কারণে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতির পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বশির আহমদ। আর গত বছরের নভেম্বরে হার্ট এট্যাকে মারা যায় দলের সাধারণ সম্পদাক জহির উদ্দীন বদন। এদিকে দলের মুল দুই অভিভাবককে হারিয়ে ঝিঁমিয়ে পড়ছে কালারমারছড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কার্যক্রম। 

দলীয় সূত্র জানাযায়,  ২০১৩ সালে কক্সবাজার জেলা পরিষদের হল রুমে কালারমারছড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় । সেখানে প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থী হাসান বশির ও বদিউল আলমকে কাউন্সিলরদের প্রত্যক্ষ ভোটে পরাজিত করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন বশির মেম্বার ও জহির উদ্দীন বদন। সেই থেকে দীর্ঘ ৭ বছর ধরে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কার্যক্রম চললে ও গত দুই বছর ধরে তেমন কোন কার্যক্রম চোখে পড়েনি। এদিকে তৃণমূল আওয়ামীলীগ কর্মী উত্তরনলবিলার কালু মাঝি বলেন আগের মতো দলীয় কোন কার্যক্রম চোখে পড়ে না। যে যার মতো ব্যস্ত। এভাবেই তো আর দল চলতে পারে না। এখন আওয়ামীলীগ থেকে হাইব্রীড আওয়ামীলীগ বেশি।

ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল আলম টিপু বলেন, বর্তমানে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের দুইটি গুরুত্বপূর্ণ পদ শূন্য থাকায় দল নিষ্ক্রয় হয়ে পড়েছে এমতাবস্থায় তৃণমূল থেকে কাউন্সিলরের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব খুবই প্রয়োজন। এর জন্য উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের দিকে থাকিয়ে থাকা ছাড়া আর কোন কাজ নেই।

ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা বদিউল আলম জানান, দলের মূল দুই অভিভাবক কে হারিয়ে দলীয় কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়ছে। উপজেলা নেতৃবৃন্দদের প্রতি অভিব্যক্ত করে বলেন যদি আহবায়ক কমিটি গঠন করে তার অধীনে অতিদ্রুত সময়ে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি দেওয়া হয় তাহলে আবারও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সক্রিয় হবে বলে দাবী করেন।

এদিকে জানযায়, সভাপতি দায়িত্ব থেকে অসুস্থ জনিত কারণে সরে দাড়ালে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসাবে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের হাল ধরেন কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ। কিন্ত তা নিয়েও বির্তক পিছু হটেনি। অনেকের কানাঘুষায় তেমন কার্যক্রম গড়ে ওঠা হয়নি। 

এবিষয়ে তারেক চেয়ারম্যান জানান, আসলে সাংগঠনিক ভাবেও আমাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়নি। তবে দলের সহ-সভাপতি হিসাবে দুই অভিভাবক হারিয়ে দলীয়ভাবে জাতীয় প্রোগ্রাম গুলো পালন করা হয়। কিন্তু ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কোন বর্ধিত সভা বা অন্যান্য দলীয় প্রোগ্রাম গুলো তেমন ভাবে পালন করা হয় না। তবে নতুন কমিটি হলে আবারও কালারমারছড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ঘুরে দাঁড়াবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

এদিকে কালারমারছড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বশির মেম্বারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে অসুস্থতাজনিত কারণে রাজনীতির বাহিরে আছি। তবে আমি দল পরিচালনা করার জন্য তাৎক্ষণিক ভাবে একক সিদ্ধান্তে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসাবে তারেক বিন ওসমান শরীফকে লিখিত দিয়েছিলাম। সেই থেকেই চলছে কোন রকম করে। তবে এখন দলীয় কোন নেতাকর্মী আমার খোঁজ খবরও রাখে না।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব আনোয়ার পাশা চৌধুরি জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা আছে দলকে হাইব্রীড মুক্ত করে নতুন করে সাজানোর। যেহেতু কালারমারছড়ার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের গুরুত্বপূর্ণ দুইটি পদ শূন্য তাই পরিকল্পনা আছে কালারমারছড়া ইউনিয়ন আওয়ালীগ সহ অন্যান্য ইউনিয়ন কমিটি সম্মেলনের মাধ্যমে অতিশীঘ্রই নতুন কমিটির ঘোষণা করার।

শিরোনাম ছিলো.. "অভিভাবক শূন্য কালারমার ছড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ"

Post a Comment

Iklan Atas Artikel

Iklan Tengah Artikel 1

Iklan Tengah Artikel 2

Iklan Bawah Artikel